সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০১৯, ০৮:০০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
চাঁপাইনবাবগঞ্জে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত গরিবের ৪০ বস্তা চালসহ আ.লীগ নেতা আটক পাসপোর্ট অফিসে কথা বলে ধরা খেলেন চার রোহিঙ্গা নারী কুড়িগ্রামে কনসার্টে অর্ধশতাধিক মাদক ব্যবসায়ীর আত্মসমর্পণ ভিডিও প্রকাশের ভয় দেখিয়ে তিন বছর ধরে ভাতিজিকে ধর্ষণ গ্রীন লাইফ হাসপাতালে শিশুর নাড়িভুড়ি বের করে ফেললেন ডাক্তার শিক্ষার্থীরা বানালো বঙ্গবন্ধুর ৩০০০ বর্গফুট প্রতিকৃতি বগুড়ায় বিএনপি নেতা শাহীনকে হত্যার দায় স্বীকার করলেন পায়েল ৪৩ দিন কারাভোগ শেষে জামিন পেলেন হিরো আলম প্যানেল মেয়রের নির্দেশে বিএনপি নেতা শাহীন খুন! ময়মনসিংহে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৪ বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ময়মনসিংহের মেয়র টিটু কারাগার থেকে হাসপাতালে বাবর ভাগনির বাসায় খালাকে গণধর্ষণ সিলেট চলচ্চিত্র উৎসব ২৩ এপ্রিল, স্বাগত জানালেন তারকারা ভাইকে অপহরণ, ভাইসহ ৫ জনের যাবজ্জীবন খাগড়াছড়িতে গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যা পাহাড়ে রঙিন উৎসব জলে ফুল ভাসিয়ে পাহাড়ে বৈসাবি উৎসব শুরু বাঘাইছড়িতে ব্রাশফায়ারের ঘটনায় আরও একজনের মৃত্যু
গার্মেন্টস শিল্প বাঁচলে দেশ বাঁচবে

গার্মেন্টস শিল্প বাঁচলে দেশ বাঁচবে

বিজিএমইএর আঞ্চলিক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে গতকাল শনিবার চট্টগ্রামস্থ ১৯টি তৈরি পোশাক কারখানায় চাকুরিকালীন মৃত শ্রমিক-কর্মচারীদের ওয়ারিশদের মাঝে অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ২১টি গ্রুপ বীমা দাবির চেক হস্তান্তর করা হয়। বিজিএমইএর প্রথম সহ-সভাপতি মঈনউদ্দিন আহমেদ মিন্টুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সিএমপি কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান প্রধান অতিথি হিসেবে ওয়ারিশদের হাতে গ্রুপ বীমা দাবির চেক তুলে দেন। এ সময় বিজিএমইএ সহ-সভাপতি মোহাম্মদ ফেরদৌস, বিজিএমইএর পরিচালক ও বিজিএমইএ চট্টগ্রামের গ্রুপ ইন্সুরেন্স বিষয়ক স্থায়ী কমিটির পরিচালক ইনচার্জ কাজী মাহাবুব উদ্দিন জুয়েল, পরিচালক আ ন ম সাইফউদ্দিন, মোহাম্মদ সাইফ উল্লাহ্‌্‌ মনসুর, আমজাদ হোসাইন চৌধুরী, বিজিএমইএর প্রাক্তন প্রথম সহ-সভাপতি এসএম আবু তৈয়ব ও নাসির উদ্দিন চৌধুরী এবং পুলিশের উর্র্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও বিভিন্ন পোশাক শিল্প প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি, মৃত শ্রমিকদের উত্তরাধিকারী ও আত্মীয় স্বজন উপস্থিত ছিলেন। প্রধান অতিথি সিএমপি কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান বলেন, তৈরি পোশাক শিল্পকে ঘিরে বাংলাদেশের অর্থনীতির চাকা সচল রয়েছে। আগামী দিনের সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে তৈরি পোশাক শিল্পের এখনও কোন বিকল্প সৃষ্টি হয়নি। উদ্যোক্তা এবং শ্রমিকদের মেধা, বিনিয়োগ ও শ্রম দক্ষতায় এ শিল্প এত দূর এগিয়ে এসেছে। শ্রম অঞ্চলগুলোতে বিশেষ করে পোশাক শিল্পাঞ্চলে শান্তি শৃঙ্খলা ও নিরাপত্তা রক্ষায় সিএমপির ভূমিকা তুলে ধরেন। প্রত্যন্ত অঞ্চলের দরিদ্র মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে তৈরি পোশাক শিল্পের ভূমিকার কথা উল্লেখ করে এ শিল্পে শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষায় শ্রমিক ও মালিকদের সহযোগিতা কামনা করেন। তিনি তার পক্ষ থেকে এ শিল্পের অগ্রযাত্রায় সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন। গার্মেন্টস শিল্প বাঁচলে দেশ বাঁচবে। বক্তব্যের শুরুতে মঈনউদ্দিন আহমেদ মিন্টু মৃত শ্রমিকগণের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং তাদের স্বজনদের সমবেদনা জানান। তিনি বলেন, শ্রমিকরা এ শিল্পের প্রাণশক্তি। তাদের ভাল-মন্দের সাথে এ শিল্পের ভাল-মন্দও জড়িত। তিনি তার বক্তব্যে শ্রমিকদের কল্যাণে বিজিএমইএর গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপ সংক্ষেপে তুলে ধরেন। বিশেষ করে চট্টগ্রামে নারী শ্রমিকদের নিরাপদ স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে বিজিএমইএর প্রতিষ্ঠিত হাসপাতাল, শ্রমিকদের সন্তানদের জন্য অবৈতনিক স্কুল এবং নিরাপদ বাসস্থানের জন্য ডরমেটরী বাস্তবায়নের কথা উল্লেখ করেন। তিনি আর্থসামাজিক উন্নয়নে শ্রমিকদের ভূমিকা, দক্ষতা ও নিষ্ঠার প্রশংসা করেন। শ্রমিক কল্যাণে বিজিএমইএর কর্মসূচি আরো প্রসারিত করা হবে মর্মে তিনি উল্লেখ করেন। শ্রমিকরাই আগামী দিনের সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার মূল কারিগর বলে তিনি মন্তব্য করেন। স্বাগত বক্তব্য দেন, কাজী মাহাবুব উদ্দিন জুয়েল। বক্তব্য দেন, মোহাম্মদ ফেরদৌস, এসএম আবু তৈয়ব ও নাসির উদ্দিন চৌধুরী। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 jonotarbangla.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com