বুধবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০১৯, ০৮:৫১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরনাম
সাংবাদিকসহ আহত-৫ \ গাড়ি ভাংচুর টঙ্গীর কাদেরিয়ায় টেন্ডার শিডিউল জমাদানের সময় সন্ত্রাসীদের হামলা উত্তরার দক্ষিনখানে দেবরের হাতে ভাবি খুন বাঁচানো গেলনা চৌগাছার ক্যান্সার আক্রান্ত প্রাথমিক শিক্ষিকা সাগরিকাকে যশোরের শত বছরের পুরোনো ঐতিহ্যবাহী জেলা পরিষদ ভবনটি ভেঙ্গে ফেলা হবে কিনা তানিয়ে গণশুনানী অনুষ্ঠিত পুলিশি বাধা উপেক্ষা করে বিএনপির কর্মসূচি পালন ‘রেড’ জোনে যেসব আর্থিক প্রতিষ্ঠান বাণিজ্য মেলায় পুরস্কার পেল ৪২ প্রতিষ্ঠান গো-খাদ্য ও দুধে ক্ষতিকর কেমিক্যাল! ‘বিএনপির আন্দোলনের মতো সামর্থ্য নেই, নালিশ আর মামলাই তাদের শেষ ভরসা’ কাগইল কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের নবনির্মিত ভবন উদ্বোধন ইজতেমা ময়দানের চার পাশে অবৈধ স্থাাপনা উচ্ছেদ, চলছে প্র¯‘তির কাজ ময়দান সিসি ক্যামেরা ও আইন শৃংখলা বাহিনী দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হবে যশোরে পৃথক দ‚র্ঘটনায় মিল শ্রমিক নিহত \ আহত ২ যশোরের চুড়ামনকাটিতে রাস্তায় গাছের গুড়ি ফেলে পরিবহনে ডাকাতি বরগুনায় ধানক্ষেতে অর্ধশত ইটভাটা হুমকির মুখে ফসলিজমি ও নদী রক্ষাবাঁধ ঝিকরগাছায় ইজিবাইক চালক ফারুক হত্যার আসামিরা প্রকাশ্যে হত্যা ও মাদক মামলার আসামীদের পক্ষাবলম্বন করলেন এমপির ভাই গিয়াস # হুমকিতে নিরাপত্তাহীনতায় বাদীর পরিবার ‌‌দশ শর্তে দু’পক্ষ বিশ^ ইজতেমা অনুষ্ঠানে সম্মতি স্থানীয় মন্ত্রীর প্রতি লিখিত আবেদন-আমার পরিবারকে বাঁচান টঙ্গীতে সু-বিচার পেতে সাংবাদিক সম্মেলন মনির মজুমদারের এড়লের বিলে ৩ টি খাল খনন শুরু কৃষকের মাঝে আনন্দের বন্যা আগামী মৌসুমে ৪ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো চাষের স্বপ্ন যশোরে পুলিশ পরিচয়ে একের পর এক ছিনতাই আতংক বাড়ছে জনমনে টঙ্গীতে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় উত্তেজনা টিএন্ডটি বাজার কমিটির সভাপতি লাঞ্চিত
কেন্দ্রের সঙ্গে নজিরবিহীন সংঘাত, টানা ধর্নায় মমতা

কেন্দ্রের সঙ্গে নজিরবিহীন সংঘাত, টানা ধর্নায় মমতা

সারদা দুর্নীতি মামলায় জিজ্ঞাসাবাদ করতে কলকাতার পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারের বাসায় দেশটির কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার (সিবিআই) কর্মকর্তাদের অভিযানের জেরে নজিরবিহীন ধর্নায় বসেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। রোববার বিকেল থেকে শুরু হওয়া মমতার এই ধর্না এখনো চলছে।

পশ্চিমবঙ্গের বাংলা দৈনিক আনন্দবাজার বলছে, সারদা দুর্নীতি মামলার তদন্তে ‘সহযোগিতা’ না করার অভিযোগ নিয়ে সিবিআই কর্মকর্তারা রোববার সন্ধ্যায় কলকাতার পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারের বাড়িতে হাজির হতেই পরিস্থিতি জটিল আকার ধারণ করে।

কলকাতা পুলিশ দেশটির কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিবিআইয়ের কর্মকর্তাদের আটক করে থানায় নিয়ে যায়। এরপরের সব ঘটনা নজিরবিহীন। পুলিশ কমিশনারের বাসায় ছুটে যান মুখ্যমন্ত্রী। উচ্চপদস্থ পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে দীর্ঘ বৈঠক করেন।

তারপরই ঘোষণা করেন, মোদি সরকারের হাত থেকে দেশের সংবিধানকে বাঁচাতে তিনি নিজে ধর্নায় বসবেন। এই ধর্নাকে তিনি সত্যাগ্রহ বলে অভিহিত করেছেন। রাজীব কুমারকে বিশ্বের সেরা পুলিশ অফিসারদের অন্যতম বলেও বর্ণনা করেন মুখ্যমন্ত্রী।

রাত থেকেই ধর্মতলার মেট্রো চ্যানেলে মমতার ধর্না শুরু হয়। সেখানে তৃণমূলের নেতা-মন্ত্রীদের পাশাপাশি হাজির ছিলেন রাজীব কুমার-সহ জ্যেষ্ঠ পুলিশকর্তারাও।

আপাতত মুখ্যমন্ত্রী যে এটা চালিয়ে যাবেন, তার ইঙ্গিত দিয়ে তিনি জানিয়েছেন, সোমবার বিধানসভায় বাজেট পেশের আগে প্রথামাফিক মন্ত্রিসভার বৈঠকটি হবে ধর্না মঞ্চের পাশে অস্থায়ী ছাউনিতে। ১৩ বছর আগে বিরোধী নেত্রী থাকাকালীন তৎকালীন বাম সরকারের বিরুদ্ধে এমন প্রতিবাদী আন্দোলন মমতা করেছেন।

সর্বশেষ সিঙ্গুর আন্দোলনের সময়ে এই মেট্রো চ্যানেলেই ২৬ দিন অনশন করেছিলেন তিনি। এখন কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে পথে বসে মমতা আবার অতীতের স্মৃতি ফিরিয়ে দিলেন। তিনি জানিয়েছেন, কেন্দ্র এখানে রাষ্ট্রপতির শাসন জারি করলেও পরোয়া নেই। তিনি দেখে নেবেন।

লোকসভা নির্বাচনের ঠিক আগে বিরোধী দলগুলো যখন সম্মিলিতভাবে বিজেপির বিরুদ্ধে জোট বাঁধার চেষ্টা করছে এবং কলকাতার ব্রিগেড সমাবেশে শপথ গ্রহণ করেছে, তখন তাৎপর্যপূর্ণভাবে মমতার ধর্না দেশের বিরোধী রাজনীতিতেও নতুন মাত্রা যোগ করল বলে কলকাতার রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন।

ধর্নার খবর পেয়ে শীর্ষস্থানীয় বিরোধী নেতারা মমতার সঙ্গে যোগাযোগ করতে শুরু করেন। ফোন করেন কংগ্রেসের সভাপতি রাহুল গান্ধী, আহমেদ প্যাটেল, অখিলেশ যাদব, মায়াবতীও। মমতার সমর্থনে টুইট করেন চন্দ্রবাবু নাইডু, অরবিন্দ কেজরিওয়াল।

বার্তা পাঠান সাবেক রাজ্যপাল গোপালকৃষ্ণ গান্ধীও। মমতা বলেন, সবাই বলছেন তারা সঙ্গে আছেন। সোমবার এই ধর্নায় যোগ দিতে পারেন আরজেডি নেতা তেজস্বী যাদব। আসতে পারেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালও।

সারদা তদন্তের ব্যাপারে রাজীব কুমারকে কিছু দিন ধরেই তলব করছিল সিবিআই। সিবিআইয়ের অভিযোগ, রাজীব কুমার সারদা সংক্রান্ত বিশেষ তদন্তকারী দলের (সিট) শীর্ষে ছিলেন। কিন্তু বেশ কিছু নথি তিনি সিবিআইকে দেননি বা নষ্ট করেছেন। তাকে বারবার নোটিশ দিয়ে ডাকলেও রাজীব কুমার সিবিআইতে যাননি বা তদন্তে সহযোগিতা করছেন না বলে অভিযোগ।

সব মিলিয়ে এবার তাকে গ্রেফতার পর্যন্ত করা হতে পারে বলে শনিবার সন্ধ্যা থেকেই খবর রটেছিল। যদিও রাজ্য প্রশাসন তাতে আমল না দিয়ে জানিয়ে দেয়, আদালতের নির্দেশে রাজীব কুমারকে জেরা বা গ্রেফতার করা যাবে না। আলোচনা করা যেতে পারে।

কিন্তু রোববার সকালে সিবিআই দফতরে অফিসারদের সঙ্গে শীর্ষ কর্তাদের বৈঠকের পরে অবস্থা দ্রুত বদলায়। রাজীব কুমারকে গ্রেফতার করা হতে পারে বলেও আশঙ্কা দানা বাঁধে।

সকালে পরপর দুটি টুইট করে মুখ্যমন্ত্রী জানান, বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব জঘন্য রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় শুধু যে রাজনৈতিক দলগুলোকে নিশানা করছে তা-ই নয়, ক্ষমতার অপব্যবহার করে পুলিশের উপর নিয়ন্ত্রণ কায়েম করছে। সব প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করার চেষ্টা করছে। আমরা এর নিন্দা করছি। কলকাতার পুলিশ কমিশনারের সাহসিকতা, নিষ্ঠা ও সততা প্রশ্নাতীত। তিনি সপ্তাহের সাত দিনই ২৪ ঘণ্টা কাজ করেন। এর মধ্যে একদিনই তিনি ছুটিতে ছিলেন। তা নিয়ে মিথ্যা রটনা হচ্ছে।

রাতে পুলিশ কমিশনারের বাড়ির গেটে দাঁড়িয়ে সাংবাদিক সম্মেলন করেন মুখ্যমন্ত্রী। শনিবার রাজ্যে সভা করে নরেন্দ্র মোদি বলে গিয়েছেন, মমতার সরকারের পতন হবেই। তার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে পুলিশ কমিশনারকে কেন্দ্র করে তৈরি পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে গিয়ে মমতা তীক্ষ্ণ আক্রমণ শানান মোদির বিরুদ্ধে।

তিনি বলেন, নরেন্দ্র মোদি ও অমিত শাহ বিজেপির দুই গুন্ডা মিলে বাংলায় ক্যু করার চেষ্টা করছেন। যে ত্রাস শুরু হয়েছে তা জরুরি অবস্থার থেকেও ভয়াবহ। ক্ষমতায় ফিরবেন না বুঝে মোদি পাগল হয়ে গিয়েছেন। এবার কি রাজ্যে ৩৫৫ ধারা জারি হবে, না কি ৩৫৬?

মমতা বলেন, রাষ্ট্রপতির শাসন হলেও আমরা দেখে নেব। একটা গদ্দার (এই বিশেষণ তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যাওয়া এক নেতা সম্পর্কে প্রয়োগ করেন) আর এক চম্বলের ডাকাতের ( এই বিশেষণের লক্ষ্য বিজেপির এক কেন্দ্রীয় নেতা) কথায় মোদী এবং শাহ এ সব করছেন। একটা করে নির্বাচন আসে, তখন চিটফান্ডের নাম করে যেখানে ইচ্ছে ঢুকে পড়ে।

মোদি-সহ বিজেপির বিভিন্ন নেতানেত্রীর নাম উল্লেখ করে তিনি অভিযোগ করেন, বিভিন্ন চিটফান্ডের সঙ্গে সম্পর্ক থাকা সত্ত্বেও সিবিআই তাদের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নিচ্ছে না। তিনি কেন রাজীব কুমারের পাশে দাঁড়িয়েছেন তার ব্যাখ্যা দিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর দাবি, আমার সরকারের কোনও অফিসার, কোনও কর্মীর বিপদ হলে তাদের সুরক্ষা দেয়া আমার সাংবিধানিক দায়িত্ব।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 jonotarbangla.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com