বুধবার, ২২ মে ২০১৯, ১১:৩০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
ইঞ্জিন ও পাওয়ার কার সঙ্কট ঈদে রেলযাত্রায় বিড়ম্বনা বাড়াতে পারে যানবাহনের মেয়াদোত্তীর্ণ সিলিন্ডার রাজপথে বাড়াচ্ছে প্রাণহানির ঝুঁকি কৃষক কাঁদছে, পুড়ছে ধান! টিকেট পেতে ভোগান্তি ওয়াহাব-আমির-আসিফ পাকিস্তান বিশ্বকাপ দলে পাকিস্তানকে হারাল ইংল্যান্ড ব্রাজিলে মদের দোকানে বন্দুকধারীদের গুলিতে নিহত ১১ চলে গেলেন কৌতুক অভিনেতা স্যামি শোর তাজিকিস্তানে কারাগারে দাঙ্গায় নিহত ৩২ খোলামেলা আলোচনায় মোনালিসা এবার মিলার বিরুদ্ধে মানহানীর মামলা নশিপুর ইউনিয়ন পরিষদে উন্মুক্ত বাজেট ঘোষণা গাবতলীতে আ’লীগ নেতা শিলু’র উদ্যোগে ইফতার মাহফিল গাবতলীতে স্বামীর সন্ধান চেয়ে গৃহবধুর সংবাদ সম্মেলন বাগবাড়ীতে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৩৮তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপে ব্যাকআপ হিসেবে থাকছেন বাংলাদেশের ৬ ক্রিকেটার রমিজ রাজার মুখে বাংলাদেশ দলের ভূয়সী প্রশংসা ইমামের চোট গুরুতর! উৎকণ্ঠা পাক শিবিরে ছাত্রলীগের তালিকায় আরও ৮২ বিতর্কিত নেতা মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে বারবার ছুটে আসি: সালমা ইসলাম এমপি
প্রথম ম্যাচে জয় নিশ্চিত করলেন ঢাকা

প্রথম ম্যাচে জয় নিশ্চিত করলেন ঢাকা

বিপিএলে নিজেদের প্রথম ম্যাচে এমন সন্দেহবাদীদের ভুল প্রমাণ করতে পারেনি রাজশাহী।

Spread the love

নিজস্ব প্রতিবেদক : এবারের বিপিএলে সবচেয়ে শক্তিশালী দল কোনটি? এ প্রশ্নের উত্তরে একেক রকম উত্তর আসতে পারে। সবচেয়ে দুর্বল দল? এ প্রশ্নের উত্তর অনেকেই দেবেন না। যারা দিচ্ছেন, তাদের উত্তর অভিন্ন, রাজশাহী কিংস। বিপিএলে নিজেদের প্রথম ম্যাচে এমন সন্দেহবাদীদের ভুল প্রমাণ করতে পারেনি রাজশাহী। ঢাকা ডায়নামাইটসের সামনে রীতিমতো উড়ে গেছে তারা। ১৮৯ তাড়া করতে নেমে ১০৬ রানে অলআউট দলটি। ৮৩ রানের হার দিয়ে শুরু হলো ২০১৬ বিপিএলের রানার্সআপদের।

দুই দলের পার্থক্য ১০ ওভারেই নির্ধারিত হয়ে গেছে। প্রথম ১০ ওভারে বিনা উইকেটে ১১৩ রান তুলেছিল ঢাকা। আর তাড়া করতে নামা রাজশাহী প্রথম ১০ ওভারে ওভারপ্রতি ৬ রান তুলতেই পারেনি। ৫৯ রান তুলতেই ৬ উইকেট হারিয়ে ফেলেছে দলটি। ১৯০ রানের লক্ষ্যে নামা রাজশাহীর ম্যাচে টিকে ছিল ২য় ওভার পর্যন্ত। মুমিনুল হক ও মোহাম্মদ হাফিজ ওই দুই ওভারে ২২ রান এনে দিয়েছিলেন। তৃতীয় ওভারে বল বুঝে নিলেন সাকিব আল হাসান। রাজশাহীও ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়তে শুরু করল। সাকিবের বলে মুমিনুল আউট হলেন দলীয় ২৪ রানে। ৩ বল ও ৫ রান ব্যবধানে সৌম্যও তাঁর পিছু নিলেন। সপ্তম থেকে দশম ওভারের মধ্যে রাজশাহী হারিয়েছে আরও ৪ উইকেট। এ আসা যাওয়ার মিছিলে ছিলেন সবাই। লরি ইভান্স, জাকির হাসান, মোহাম্মদ হাফিজ ও ইয়ঙ্কাররা একে একে বিদায় নিয়েছেন আর রাজশাহীর ইনিংসের কঙ্কাল বেরিয়ে এসেছে। কেউই পারেননি দলকে আস্থা দিতে। দলের রান ৮০ হতে হতেই ড্রেসিংরুমে আশ্রয় খুঁজে নিয়েছেন মিরাজ, আলাউদ্দীন বাবু ও কায়েস আহমেদ। রাজশাহী যে শেষ পর্যন্ত এক শ পার করতে পেরেছে এর জন্য দলটি আরাফাত সানী ও মোস্তাফিজকে ধন্যবাদ দিতে পারে। শেষ উইকেটে এ দুজন ২৬ রান যোগ না করলে ঢাকার জয়ের ব্যবধানটা তিন অঙ্কেই থাকত। সানী ১৮ রান করে আউট হওয়াতে শেষ হয়েছে এই সান্ত্বনার জুটি। ১১ রানে অপরাজিত ছিলেন মোস্তাফিজ। দলের নবম, দশম ও একাদশ ব্যাটসম্যানই শুধু ছক্কা মেরেছে রাজশাহীর, এ তথ্যটাই বুঝিয়ে দিচ্ছে দলটার ব্যাটিংয়ের করুণ দশার কথা।

তিন ওভারে মাত্র ৭ রান দিয়ে ৩ উইকেট রুবেল হোসেনের। বাকি উইকেটগুলো ভাগাভাগি করে নিয়েছেন অন্য বোলাররা। শুধু সুনীল নারাইনই ভাগ পাননি উইকেটের।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 jonotarbangla.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com