বুধবার, ২২ মে ২০১৯, ১১:২১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
ইঞ্জিন ও পাওয়ার কার সঙ্কট ঈদে রেলযাত্রায় বিড়ম্বনা বাড়াতে পারে যানবাহনের মেয়াদোত্তীর্ণ সিলিন্ডার রাজপথে বাড়াচ্ছে প্রাণহানির ঝুঁকি কৃষক কাঁদছে, পুড়ছে ধান! টিকেট পেতে ভোগান্তি ওয়াহাব-আমির-আসিফ পাকিস্তান বিশ্বকাপ দলে পাকিস্তানকে হারাল ইংল্যান্ড ব্রাজিলে মদের দোকানে বন্দুকধারীদের গুলিতে নিহত ১১ চলে গেলেন কৌতুক অভিনেতা স্যামি শোর তাজিকিস্তানে কারাগারে দাঙ্গায় নিহত ৩২ খোলামেলা আলোচনায় মোনালিসা এবার মিলার বিরুদ্ধে মানহানীর মামলা নশিপুর ইউনিয়ন পরিষদে উন্মুক্ত বাজেট ঘোষণা গাবতলীতে আ’লীগ নেতা শিলু’র উদ্যোগে ইফতার মাহফিল গাবতলীতে স্বামীর সন্ধান চেয়ে গৃহবধুর সংবাদ সম্মেলন বাগবাড়ীতে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৩৮তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপে ব্যাকআপ হিসেবে থাকছেন বাংলাদেশের ৬ ক্রিকেটার রমিজ রাজার মুখে বাংলাদেশ দলের ভূয়সী প্রশংসা ইমামের চোট গুরুতর! উৎকণ্ঠা পাক শিবিরে ছাত্রলীগের তালিকায় আরও ৮২ বিতর্কিত নেতা মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে বারবার ছুটে আসি: সালমা ইসলাম এমপি
প্রার্থিতা ফিরে পেলেন গোলাম মাওলা রনি

প্রার্থিতা ফিরে পেলেন গোলাম মাওলা রনি

Spread the love

জনতার বাংলা রিপোর্ট : আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পটুয়াখালী-৩ আসনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী গোলাম মাওলা রনি তার প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন। মনোনয়নপত্রে স্বাক্ষর না থাকায় তা জমা দেওয়ার পর বাতিল হয়ে গেলেও আপিল করে প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন এই রাজনীতিক।

বৃহস্পতিবার (৬ ডিসেম্বর) সকালে নির্বাচন ভবনের ১১তলায় নির্বাচন কমিশনে রনির আপিলের শুনানি শেষে তার পক্ষে এই সিদ্ধান্ত দেওয়া হয়। 

এর আগে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. শামসুল হুদার আবেদনের শুনানির মাধ্যমে কমিশন এ কার্যক্রম শুরু করে। প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ও অন্য নির্বাচন কমিশনাররা শুনানি করছেন।

রনির আগে বগুড়া-৭ আসনে বিএনপির প্রার্থী মিল্টন মোর্শেদের আপিল শুনানি শেষে তাকে প্রার্থিতা ফিরিয়ে দেওয়া হয়। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগ না করার কারণ দেখিয়ে তার মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছিল।

প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন ঢাকা-১ আসনের বিএনপির আরেক প্রার্থী খন্দকার আবু আশফাক। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগ না করার কারণ দেখিয়ে তারও মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল।

ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ জানিয়েছেন, মোট ৫৪৩টি আপিল আবেদন পড়েছে। ৬ ডিসেম্বর প্রথম দিন ১ থেকে ১৬০ নম্বর আপিলের শুনানি হবে। ৭ ডিসেম্বর দ্বিতীয় দিনে ১৬১ থেকে ৩১০ নম্বর আবদনের শুনানি হবে। আর ৮ ডিসেম্বর শেষ দিন শুনানি হবে ৩১১ থেকে ৫৪৩ নম্বর আবেদনের।

প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে শুনানি শুরু হয়ে নির্ধারিত আবেদন নম্বর শেষ না হওয়া পর্যন্ত চলবে।

মনোনয়নপত্র বাছাইকালে ২ হাজার ২৭৯টি মনোনয়নপত্র বৈধ ও ৭৮৬টি অবৈধ বলে ঘোষণা করেন সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তারা। এগুলোর মধ্যে বিএনপির ১৪১টি, আওয়ামী লীগের ৩টি এবং জাতীয় পার্টির ৩৮টি মনোনয়নপত্র রয়েছে। এছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে ৩৮৪টি।

৩৯টি দল ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মিলে এবার ৩০০ সংসদীয় আসনে ৩ হাজার ৬৫টি মনোনয়নপত্র জমা দেয়। এর মধ্যে দলীয় মনোনয়নপত্র জমা পড়ে মোট ২ হাজার ৫৬৭টি, আর স্বতন্ত্র ছিল ৪৯৮টি।

আগামী ৯ ডিসেম্বর প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময়। ১০ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দ। আর ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে ৩০ ডিসেম্বর।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 jonotarbangla.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com